জুঁই এর বন্ধু ।। ওয়াসিম হোসেন

শরৎ এর সাদা মেঘ গুলো ছুটি নিয়ে সবেমাত্র বিশ্রামে গেছে । বাঙ্গালীর উৎসবের ঋতু হেমন্তের আগমন । এক সময় স¤্রাট আকবর হেমন্ত ঋতু দিয়েই বছর গণনা শুরু করেছিলেন খাজনা আদায়ের জন্য । হেমন্তের ঐশ্বর্যে নবান্নের আগমন ঘটে ।

বাঙ্গালীর আনন্দ উৎসব উপভোগ করার জন্য হেমন্তের এক বিকালে চিরহরিত্ (সারা বছর সবুজ থাকে) স্বর্গ থেকে একটা জুঁই ফুল পৃথিবীতে আগমন করল। তার পবিত্রতা দিয়ে বাঙ্গালীর আনন্দ উৎসবকে রাঙিয়ে দিতে পৃথিবীতে তার আগমন ।

পৃথিবীতে এসে সংশয়ে পড়ে যায় জুঁই ! সে মনে মনে ভাবে “আমি কি পৃথিবীতে এলাম নাকি অন্য কোন ভুল গ্রহে ঠাই নিলাম । এই পৃথিবী তো এমন ছিলো না ! এখানকার মানুষগুলো তো এমন ছিলো না! তবে কি আমার ভুল হচ্ছে। নাকি এখন মানুষগুলো বদলে গেছে ।” এর আগেও কয়েকবার পৃথিবীতে এসেছিলো জুঁই । তখনকার মানুষগুলো ছিলো খুবই সাদামনের । হৃদয় ছিলো আকাশের মত । আর এবার এসে দেখে অনেক কিছুর পরিবর্তন হয়ে গেছে । মানুষগুলো বদলে গেছে এমনকি অনেকের পশুবৃত্তিভাব দূর হয় নাই । তবে মানুষগুলো এখন অনেক উন্নত হয়েছে বঠে । এখন তারা ইন্টারনেটের ম্যাধ্যমে সবার সাথে যোগাযোগ করতে পারে! কিন্তু সেখানেও নাকি অনেকের মুর্খতার কারনে সত্য ঘটনার চাইতে মিথ্যার প্রভাব আছে !

হেমন্তের পরেই শীতকালের আগমন ঘটবে তখন তার পাতা গুলো ঝরে যাবে । শীতকাল পযন্ত পৃথিবীতে থাকবে জুঁই। তাই কিছু বন্ধু খোজা শুরু করল । একদিন ফুল বাগানে সীমা,ঈশিতা, দিশা ও সাবা ঘুরতে এলো। বাগানে এসে জুই এর সাথে তাদের পরিচয় ও সখ্যতা গড়ে উঠে, তারো সবাইকে খুবই ভালো লাগে। তারা সকলে পরস্পর বন্ধু হয়ে গেল ।

ঈশিতা বলতে শুরু করল, বন্ধু পৃথিবীর ৪০০ কোটি মানুষ এখন ইন্টারনেট ব্যবহার করে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে । কোন কিছু খুজতে চাইলেই গুগলে সার্চ দেয় । কিছু জানতে চাইলে উইকিপিডিয়ায় যায় । ভার্চুয়াল বন্ধু হওয়ার জন্য কেউ কেউ ফেসবুক, ইনস্ট্রাগ্রাম, ভাইভার, ইমো ব্যবহার করে । জেসমিন বলল আমিও তোমাদের ভার্চুয়াল বন্ধু হবো । তখন ঈশিতা জুইকে নীল আকাশের তারা নামের একটা ফেসবুক একাউন্ট খুলে দেয়। তারা সকলে ফেসবুক, টুইটারে মিউচুয়াল ফ্রেন্ড হয়ে যায় ।

স্বর্গ থেকে এসেও পৃথিবীর মানুষের ইন্টারনেট, ওয়েব জুই এর কাছে খুবই ভালো লাগে । অনলাইনে তারা আজীবনের জন্য বন্ধু হয়ে গেলো । ঈশিতা আবারো জুঁই কে বলতে লাগল, বন্ধু হয়ত একদিন আমরা থাকব না। কিন্তু কোন এক মানুষের তৈরী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আমাদের গল্পটা পড়বে। হয়ত আমাদের অজান্তেই আমরা সাহিত্য বেয়ে তথ্যপ্রযুক্তির কিছু কিলোবাইট হয়ে থাকবো।

লেখক: প্রজ্ঞার অনুসারী ।

SHARE

LEAVE A REPLY