ফিজ’ খেলছে বলে খুশির শেষ নেই ওয়ার্নারের

টস করতে আসলেন। হারলেন। কিন্তু তারপরও যখন টেলিভিশন লাইভে তার সাক্ষাৎকারের পর্ব এল তখন একটি প্রসঙ্গই টস হারার দুঃখ ভুলিয়ে দিল সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের। মজেজ হেনরিকস অসুস্থ। বিপুল শর্মাকে একাদশ থেকে বাদ দিতে হয়েছে। কিন্তু এবারের আইপিএলে গেলবারের আসর মাতিয়ে দলকে চ্যাম্পিয়ন করায় বড় ভূমিকা রাখা ‘দ্য ফিজ’ যে এবারের আসর শুরু করছেন। মঙ্গলবার ঢাকা থেকে উড়ে গেছেন। মুম্বাইয়ে দলের সাথে যোগ দিয়েই কাটার মাস্টার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে বুধবার রাত সাড়ে আটটায় শুরু ম্যাচ খেলতে নেমে পড়েছেন। টস হেরে ব্যাটিংয়ে সানরাইজার্স।

গেলবার বাঁহাতি বিস্ময় বোলার ছিলেন আইপিএলের সবচেয়ে আলোচিত নাম। এবারের আসরে এটি প্রথম অ্যাওয়ে ম্যাচ সানরাইজার্সের। তবে হায়দ্রাবাদ থেকেএ প্রতিপক্ষের মাঠে গিয়েও তো খেলতে হবে। ওয়াংখেড়ের এই মাঠে রোহিত শর্মাদের সাথে জেতা কঠিন। তবু ফিজ আছে বলেই বুঝি আত্মবিশ্বাসটা আরো বেশি ওয়ার্নারের।

‘হায়দ্রাবাদে খেলা অসাধারণ ব্যাপার। কিন্তু ঘরে থেকে বেরিয়ে বাইরেও তো খেলতে হবে। পজিটিভ ক্রিকেট খেলতে হবে। এটা চ্যালেঞ্জিং কন্ডিশন।’ এরপরই এই ম্যাচের একাদশের প্রসঙ্গ আসতেই ফিজের কারণে হাসি ধরে না অস্ট্রেলিয়ান ওয়ার্নারের মুখে, ‘মজেজ অসুস্থ। ফিজ ফিরে এসেছে (হাসি)। এটা আমাদের জন্য বড় ব্যাপার।’ প্রসঙ্গত, গেলবার মোস্তাফিজের কারণে ওয়ার্নার, কোচ টম মুডি, মেন্টর ভিভিএস লক্ষ্মনও পর্যন্ত বাংলা শিখতে শুরু করেছিলেন। বাংলায় তারা টুইটও করেছেন। কারণ, ইংরেজিতে কথা বলাটা ঠিক আসে না মোস্তাফিজের। এখন দেখার, মুখের ভাষা নয় বলের ভাষায় ফিজ আরো একবার আইপিএল মাতিয়ে তুলতে পারেন কি না।

মোস্তাফিজকে ছাড়াই অবশ্য ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সানরাইজার্সের যাত্রাটা হয়েছে দারুণ। নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচেই জিতেছে। রানরেটেও এগিয়ে থাকায় পয়েন্ট তালিকায় সানরাইজার্সই সবার উপরে। মোস্তাফিজকে তাই এবার শুরুই করতে হচ্ছে অন্যরকম একটা চ্যালেঞ্জ নিয়ে। সানরাইজার্সের জয়রথ ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ। ‘দ্য ফিজ’ পারবেন এই চ্যালেঞ্জে জয়ী হতে? গত বছর প্রথমবারের মতো আইপিএলে খেলতে গিয়েই বাজিমাত করেন মোস্তাফিজ। ১৬ ম্যাচে ১৭ উইকেট নিয়ে সানরাইজার্সকে প্রথম আইপিএল শিরোপা উপহার দিতে রেখেছিলেন বড় ভূমিকা। মোস্তাফিজ নিজে জিতে নিয়েছিলেন টুর্নামেন্টের সেরা উদীয়মান খেলোয়াড়ের পুরস্কার। এবার তাই তার উপর প্রত্যাশার চাপটা বেশি।

গত বছর শিরোপা জয়ের পথে মুম্বাইকে হোম এবং অ্যাওয়ে দুই ম্যাচেই হারিয়েছিল সানরাইজার্স। মুম্বাইয়ের বিপক্ষে সাফল্যের সেই ধারাটা এবারও কী ধরে রাখতে পারবে সানরাইজার্স? প্রশ্নটা একটু ঘুরিয়ে এভাবেও করা যায়, দলের জয়ের ধারাটা ধরে রেখে মোস্তাফিজ পারবেন মুম্বাইকে আরেকবার পরাজয়ের হতাশা উপহার দিতে? গত বছর মুম্বাইয়ের বিপক্ষে দুটি জয়েই যে বড় ভূমিকা ছিল তার।

SHARE