মরিনহোর শেষ আশা

টুইটার দেখে বোঝার কোনো উপায় আছে, আজ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও আয়াক্স আমস্টারডাম এত গুরুত্বপূর্ণ একটা ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে? যে ম্যাচের ওপর নির্ভর করছে দুই দলেরই আগামী মৌসুমের ভাগ্য?

শুরুটা আয়াক্সের অফিশিয়াল অ্যাকাউন্টই করেছে। সুইডেনের স্টকহোমে আজ ইউরোপা লিগের ফাইনালে লড়বে দুদল, কিন্তু ম্যাচটাকে সামনে রেখে ইউনাইটেডকে একটু খোঁচানোর ইচ্ছে জাগল আয়াক্সের। সে কারণেই টুইট, ‘হাই ইউনাইটেড, শুনলাম তোমাদের ট্রফি ক্যাবিনেটে কিছু একটা নেই। ওটাকে ওই অবস্থাতেই রাখার চেষ্টা করব আমরা।’ ইঙ্গিত পরিষ্কার, ইংল্যান্ডের সফলতম ক্লাবটি তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতলেও ইউরোপের দ্বিতীয় সেরার এই ট্রফিটা কখনো জেতেনি। উয়েফা কাপ নাম থাকার সময়ও নয়, ২০০৯ সাল থেকে নামটা ইউরোপা লিগ হওয়ার পরও নয়।

ইউনাইটেড কি আর চুপ করে থাকবে! তাদের অফিশিয়াল অ্যাকাউন্ট থেকে মজা করে উত্তর, ‘আমাদের ক্যাবিনেট এখনই অনেকটা পূর্ণ। তবে চিন্তা কোরো না, ট্রফির জন্য সব সময়ই আমরা জায়গা বের করে নিতে পারব!’

কী বন্ধুত্বপূর্ণ, মজার খোঁচাখুঁচি! তবে এতটুকু নিশ্চিত, স্টকহোমের ফ্রেন্ডস অ্যারেনায় ম্যাচটা আজ মোটেই এতটা ‘বন্ধুত্বপূর্ণ’ হবে না। হতে পারে ইউরোপা লিগ ইতিহাস-ঐতিহ্য বিচারে দুই দলের জন্যই অনেকটা দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানো; ইউনাইটেড কোচ হোসে মরিনহোও বছর কয়েক আগেও যে টুর্নামেন্টের নাম শুনেই নাক সিটকাতেন। কিন্তু আজ ৯০ মিনিট (বা ১২০ মিনিট) জুড়ে দুই দল ঝাঁপাবে সবটুকু নিয়েই। কেন? আপাতত ‘ঘোল’ হলেও এই ম্যাচই দিতে পারে দুধের (পড়ুন চ্যাম্পিয়নস লিগের) স্বাদ। জয়ী দল যে সরাসরি খেলবে আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে।

পিটার বশের তরুণ আয়াক্সের চেয়েও এই মুহূর্তে মরিনহো ও ইউনাইটেডের জন্য যা বেশি প্রার্থিত। ডাচ্‌ লিগে দ্বিতীয় হওয়ায় এমনিতেই চ্যাম্পিয়নস লিগের বাছাইপর্বে খেলার সুযোগ আছে আয়াক্সের। কিন্তু ইংলিশ লিগে ষষ্ঠ ইউনাইটেডের জন্য চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার একমাত্র ও শেষ সুযোগ এই ফাইনাল। মরিনহোর জন্য আজকের এই ম্যাচ রেড ডেভিলদের ডাগআউটে প্রথম মৌসুমের ‘মূল্যায়নী পরীক্ষা’ও। জেতো, চ্যাম্পিয়নস লিগ নিশ্চিত করো—দুর্দান্ত মৌসুম! হারো—মৌসুমটা কী জঘন্য! ইউনাইটেড ডিফেন্ডার ফিল জোনসের কথায়ও এটিরই আভাস, ‘মানুষ হয়তো বলবে মৌসুমটা আমাদের ভালো যায়নি। কিন্তু আপনি লিগে দ্বিতীয় হয়ে শিরোপাহীন থাকতে চাইবেন, নাকি চাইবেন দুটি ট্রফিসহ (ইউনাইটেড লিগ কাপও জিতেছে এই মৌসুমে) চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলতে?’

শিরোপা ছাপিয়েও ম্যাচটার গুরুত্ব ইউনাইটেডের জন্য এটাই—চ্যাম্পিয়নস লিগ! আর আয়াক্সের জন্য? ১৯৯৬ চ্যাম্পিয়নস লিগের ২১ বছর পর কোনো ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওঠা দলটি খেলছে দুর্দান্ত। টানা তিনবার (১৯৭১-৭২-৭৩) ইউরোপিয়ান কাপ জয়ের কীর্তি আছে আয়াক্সের। ১৯৮৭ থেকে ১৯৯৬-এর মধ্যে দশ বছরে পাঁচটি ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেছে। ২০ বছর গড় বয়সের তরুণ এই দল আবারও সেই সুবর্ণ দিন ফিরিয়ে আনার স্বপ্নে বিভোর।

কে জানে, আয়াক্সের স্বপ্নযাত্রার সূচনা হতে পারে এই ম্যাচটিই! হোসে মরিনহো কি মুচকি হাসলেন!

সুত্র:  এএফপি

SHARE