অক্টোবরে দ্বারোদ্ঘাটন শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের

প্রযুক্তি ডেস্ক: আসন্ন অক্টোবর মাসে উদ্বোধন হতে যাচ্ছে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক।  বিশ্বমানের এ পার্কটি উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  সরকারের আইসিটি বিভাগ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে উদ্বোধনের সময় চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, অক্টোবরের আগেই এ সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কটির চালু হয়ে যাবে ।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ২৭ ডিসেম্বর যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোরে একটি বিশ্বমানের আইটি পার্ক স্থাপনের ঘোষণা দেন। সে অনুযায়ী ২০১৪ সালের ২৫ এপ্রিল শহরের নাজির শংকরপুরে সাড়ে ৯ একর জায়গার ওপর ২৮৩ কোটি টাকা ব্যয়ে এই পার্কের নির্মাণকাজ শুরু হয়। এখানে ইতিমধ্যেই প্রস্তুত হয়ে গেছে ১৫ তলাবিশিষ্ট এমটিবি ভবন, ১২ তলাবিশিষ্ট ফাইভ স্টার মানের ডরমেটরি ভবন, অত্যাধুনিক কনভেনশন সেন্টারের সঙ্গে আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং। জাপানি উদ্যোক্তাদের চাহিদা অনুযায়ী ডরমেটরি ভবনের ১১ তলার পুরোটাতে আন্তর্জাতিকমানের জিম স্থাপন করা হয়েছে। আর সব বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়েছে ভূমিকম্প প্রতিরোধক কম্পোজিট (স্টিল ও কংক্রিট) কাঠামোতে। ফাইবার অপটিক কানেক্টিভিটি আর ৩৩ কেভিএ বৈদ্যুতিক সাব-স্টেশনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এ পার্কে স্থাপন করা হয়েছে ডিজাস্টার রিকভারি ডাটা সেন্টার। শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের প্রকল্প পরিচালক (পিডি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এ পার্কে মূলত সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ফ্রিল্যান্সিং/আউটসোর্সিং, কল সেন্টার, রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, আইটি, আইটিইএস  কাজগুলো হবে। আর এসব ক্ষেত্রে ১০ হাজার আইটি প্রফেশনালের কর্মসংস্থান হবে । । দেশ-বিদেশের আইটি শিল্প উদ্যোক্তারা এখানে বিনিয়োগের সুযোগ পাবেন। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে জাপানের দুটি কোম্পানিসহ ২৫টি কোম্পানিকে পার্কে জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। স্টার্টআপ প্রতিযোগিতার ম্যাধ্যমে স্টার্টআপ কোম্পানি হিসেবে তরুণদের বিনামূল্যে গ্রাউন্ড ফ্লোর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে । দেশি, বিদেশি দুই ধরনের উদ্যোক্তাদেরই এই পার্কে জায়গা দেওয়ার ব্যাপারে আমরা আগ্রহী। জাপানের কোইডি অ্যান্ড কোং এখানে বিনিয়োগের ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

SHARE